Mon. May 29th, 2023

    বেয়ার গ্রিলস এর অনুপ্রেরণামূলক জীবনী! 

    ছেলেটির যখন মাত্র ৮ বছর বয়স তখন তার বাবা তাকে বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গ মাউন্ট এভারেস্ট এর ছবি দেখিয়ে বলেছিলেন, তুমি কি পারবে এর চূড়ায় উঠতে? সেদিন বুঝেই হোক আর না বুঝেই হোক, ছেলেটি দৃঢ়স্বরে  বলেছিল, আমি পারবো। মনের আশাকে বাস্তবে রূপ দেয়ার জন্য স্কুল জীবন শেষ হতেই ইন্ডিয়ান আর্মির সিকিম ডিভিশনে ভর্তি হওয়ার মনস্থির করলো ছেলেটি, যাতে করে হিমালয়কে আরো কাছে থেকে জানা যায়। কিন্তু বিভিন্ন সমস্যার কারণে আর ভর্তি হওয়া হয়নি ছেলেটির। হতাশা চেপে রেখে কিছুদিন পর বৃটিশ আর্মির এয়ার ডিভিশনে কাজে যোগ দিলো সে। আর মনে মনে স্বপ্নের বীজ বুনতে থাকলো হিমালয়ের সবচেয়ে বড় পর্বতশৃঙ্গ এভারেস্টের চূড়াকে নিয়ে।

     

    ছেলেটা ছিলো তুখোড় সাহসী এবং জেদি। ছোটবেলায় স্কুলে বুলিং এর শিকার হচ্ছিলো নিয়মিত, তাই সকলকে মোক্ষম জবাব দিতে কারাতে শেখার ক্লাসে ভর্তি হয়। কঠোর প্রচেষ্টায় ছেলেটা সবচেয়ে কম বয়সে কারাতের ব্লাকবেল্ট অর্জন করে। এই সাহসী ছেলেটি ব্রিটিশ আর্মির সবচেয়ে ভয়ংকর ট্রেনিংগুলো যেতে কখনো দ্বিধা করেনি। সবকিছুই ঠিকঠাক চলছিলো কিন্তু এর মাঝেই জাম্বিয়াতে ফ্রি ফল প্যারাশুটিং করতে গিয়ে মারাত্নক ভাবে আঘাতপ্রাপ্ত হয় ছেলেটি। ভেঙে যায় শিরদাঁড়ার তিনটি কশেরুকা। ডাক্তাররা বিভিন্ন চিকিৎসা করে ব্যর্থ হয়ে হাল ছেড়ে দেয় এবং বলে দেয় আর কোনদিন হাঁটতে পারবেনা ছেলেটি। তখন আর্মির চাকরিটিও ছেড়ে দিতে হয় তাকে।

    কিন্তু ছেলেটি এতো সহজে হার মানার পাত্র নয়, কারণ তখনো তার মনে একটাই স্বপ্ন ; এভারেস্টের চুড়ায়। মনের পুরনো আশাকে পুঁজি করে ছেলেটি চেষ্টা করতে থাকে হাঁটবার। বারবার চেষ্টা করেও সোজা হয়ে দাড়াতে ব্যর্থ হচ্ছিলো ছেলেটি। কিন্তু চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছিলো সে।  ডাক্তারের সব কথা মিথ্যা প্রমাণ করে মাত্র এক বছরের মাথায় ছেলেটি আবার হাঁটতে শুরু করে। আর হাটতে শুরু করার ৬মাস পর ছেলেটি তার আজীবনের স্বপ্ন এভারেস্টের চূড়ায় উঠে সবচেয়ে কম বয়সে (২৩) এভারেস্ট জয় করে (১৬ মে ১৯৯৮) রেকর্ড করে (ছেলেটির পর আরো চারজন এই রেকর্ড ভেঙেছে)। অদম্য সেই ছেলেটি মাত্র ৩৫ বছর বয়সে Chief of Scout হয়ে সবচেয়ে কম বয়সে Chief Scout হওয়ার রেকর্ড গড়ে।

     

    সেই ছেলেটি আর কেউ নয় তিনি হলেন Discovery চ্যানেলের Man vs Wild অনুষ্ঠানের বিয়ার গ্রিলস।

    বেয়ার গ্রিলস বলেন, “টিকে থাকা হচ্ছে ৩টি শব্দের যোগফল। Never give up. তাই হাল ছেড়োনা বন্ধু, চেষ্টা করতে থাকো”।

    মূলকথা হচ্ছে: স্বপ্ন দেখো পূরণ করার উদ্দেশ্য নিয়ে। স্বপ্ন দেখো তাকে বাস্তবায়নের লক্ষ নিয়ে। নিজের লক্ষ্যে স্থির থাকলে স্বপ্ন পূরণ হবেই। কিভাবে হবে জানি না, কিন্তু হবেই।