Wed. Feb 1st, 2023

    …………………………

    চলার পথে বার’বার ব্যর্থ হয়েছেন তিনি। তবে হতাশ হননি। দ্বিগুণ উদ্যোমে সাম’নের দিকে এগিয়ে চলেছেন। বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে টেনে টুনে চান্স পেয়েছেন। কম্পিউ*টার সাইন্সে পড়ার ইচ্ছা ছিল সেটা হয়নি। তবে তিনি এখন বিশ্ববিখ্যাত প্রতিষ্ঠান গুগলের                                                    একজন সফল ইঞ্জিনিয়ার হয়েছেন। ব্যর্থতাই সফলতার চাবিকাঠি এটা প্রমাণ করেছেন জুলকারনাইন মাহমুদ। সফ’লতার গল্পটা জুলকারনাইন মাহমুদের মুখ থেকেই শোনা যাক,

    “ভর্তি কোচিং-এ ওমেকাতে পজিশনও খারাপ ছিল না। কিন্তু ভর্তি পরী;ক্ষার দিন কি হলো, কয়েকটা অংক কোনোভাবেই মিলাতে পারলাম না। মনে করে’ছিলাম হয়তো চান্সই পাব না। রেজাল্টের পর দেখলাম কোন’রকমে পেয়েছি, কিন্তু সিরিয়াল অনেক পেছনে। টেনেটুনে Mechanical-এ আসে,                                       আরেক’দিকে আর্কিটেকচার।। এর মাঝে আবার ঢাকা ভার্সিটির IBA এর BBA-তে রিটেনএ টিকলাম। তখন IBA এর গ্রাজুয়েট-দের অনেক দাম।

    …………………………

    ভাবলাম IBA তে হয়ে গেলে সেখানেই পড়ব, কিন্তু কিভাবে যেন সেখানেও VIVA তে বাদ পড়ে গেলাম। তারপর ভাবলাম, আর্কিটেক;চারে পড়ে দেশে একটা ফার্ম দিব, Creativity দিয়ে অনেক কিছু করে ফেলব। তাই মেকানি;ক্যালের এর চেয়ে আর্কিটেক’চারই ভালো অপশন। ভর্তি হয়ে গেলাম সেখানেই। বন্ধু-বান্ধব, বুয়েটে লাইফ                                                   ভালোই চলছিল, কিন্তু অনেক আগে থেকেই বাইরে পড়তে যাবার একটা সুপ্ত ইচ্ছা ছিল। শুরু করলাম বাইরে এডমিশ;নের চেষ্টা।

    অনেকেই বললো এখন গিয়ে কী করবা, বুয়েটে শেষ করে মাস্টার্সে যাও, Undergraduate এ গেলে নিজে টাকা দিয়ে পড়তে হবে। কিন্তু তারপরও হাল ছাড়লাম না। গেলাম ঢাকার idp তে, বললাম যে ANU তে নাকি ফুল স্কলার*শিপ দেয়, কিভাবে কি করতে হবে? তারা বলল যে ইংলিশ মিডিয়াম হলে লাভ ছিল, বাংলা মিডিয়াম এর A+ এর দাম নাই। তারপরও নিজে থেকেই IELTS দিলাম,                                                                   ANU তে অ্যাপ্লাই করলাম। কিন্তু লাভ হলোনা, শেষমেশ রিজেক্ট। অস্ট্রেলিয়া তো আমাকে পাত্তাই দিলোনা, ভাবলাম America’য় চেষ্টা করে দেখি। কিন্তু সেখানে আবার SAT আর TOEFL ছাড়া কিছু হয়না। সেগুলোও দিলাম।

    …………………………

    খুঁজে পেতে দেখলাম যে টপ ভার্সিটি’গুলো চান্স পেলে financial aid দেয়। তাই ভাবলাম এবার তাহলে                                                      MIT তেই যাবো, বুয়েটে, ANU তো আর আমাকে বুঝলো না। সব ঠিকঠাক করে MIT তে অ্যাপ্লিকেশনও জমা দিলাম।        (যদিও হাতে গোনা কয়েকজন ছাড়া এটা কেউ জানতো না)। কিন্তু শেষমেশ এখানেও রিজেক্ট। এবার ঠিক কর’লাম জাপানে মনবসু (আসল উচ্চারণ “মনবুকাগাকুশো”) স্কলারশিপে পড়তে যাব।। অ্যাপ্লাই করলাম, রিটেনে টিকলাম, আমাদের ৪ জনকে এম্ব্যাসি থেকে সিলেক্ট করে                                               ভাইভা’তে ডাকলো। ভাইভাও খুব ভালো হলো। আমাদের কজনের নাম জাপানের মিনি*স্ট্রিতে পাঠালো। কিন্তু এবার কি হলো, বাংলা*দেশ থেকে ওরা একজন-কেও সিলেক্ট করলো না আর আমার জাপানের সপ্ন স্বপ্নই রয়ে গেল।

    জাপানি rejection এর কদিন’পরে দেখলাম Korean Government Scholarship এর সার্কুলার। এবার ভাবলাম তাহলে কোরিয়া-তেই যাই, SNU বা KAIST এ পড়বো, খারাপ কি। আসার আগে অনেকেই বলেছিল, বুয়েট ছেড়ে যাচ্ছ, ঠিক করছো তো? Korean ডিগ্রির আবার দাম আছে নাকি? ওখানে তো মানুষ কুকুরের মাংস খায়, ইত্যাদি ইত্যাদ।।
    কিন্তু আমার কাছে সব’সময়ই মনে হয়েছে যে                                           যেকোনো গভর্ন’মেন্ট স্কলারশিপ অনেক গর্বের একটা বিষয়, এখানে একজন স্টুডেন্ট তার দেশের রিপ্রেজে’ন্টেটিভ হিসেবে নিজের দেশকে তুলে ধরতে পারে। এরকম সুযোগ হাত*ছাড়া করা ঠিক না। তাই সবকিছু উপেক্ষা করে বুয়েট ছেড়ে চলে আসলাম South Korea তে পড়তে।

    …………………………

    এখানে এসে ১ বছর language course এর পরে বুঝতে পারলাম যে আমি SNU বা KAIST এ পড়তে পারবো না, কারণ আমি ভার্সিটি ট্র্যাকে অ্যাপ্লা’ই করেছি। যেই ভার্সি’টির মাধ্যমে অ্যাপ্লাই করেছি                                                                  সেখানেই পড়তে হবে। আর SNU বা KAIST এ পড়ার ইচ্ছাও আমার অপূর্ণই থেকে গেল। পাস করার আগে/পরে Google, Facebook, Apple, LinkedIn এ অনেক cv জমা দিয়েছি।

    কিন্তু কোথাও থেকেই কখনো কল পাইনি। মাঝে কল পেয়েছিলাম ThinkCell নামে ছোট একটা জার্মান কোম্পানি থেকে। সেখানে ইন্টার*ভিউও দিয়েছিলাম। আবারও প্রথম রাউন্ডেই বাদ।
    এর পরে একসময় গ্র্যাব থেকে ইন্টারভিউ এর কল পেয়েছিলাম। সেখানেও ইন্টার’ভিউ এর দ্বিতীয় রাউন্ডে বাদ পড়লাম। তারপরও হাল ছাড়িনি, চেষ্টা করে গিয়েছি। প্রথমেই থেমে গেলে হয়তো এতদূর আসা হতো না। বুয়েটের CSE কিংবা                                           MIT’তে পড়ার সুযোগ হয়তো হয়নি কিন্তু আজ যতদূর আসতে পেরেছি সেটাও বা খারাপ কী।।যেকোনো সাকসেস এর পেছনে এরকম হাজারো ব্যার্থতা থাকবেই।
    So, don’t let your failures define who you are. জুলকারনাইন এর মতো মানুষই হোক আমাদের অনুপ্রেরনা।

    @@@লেখক, জুলকারনাইন মাহমুদ
    Software Engineer, Google
    তথ্যসূত্রঃ বাংলাদেশ  টাইমস ডটকম