Wed. Feb 1st, 2023

    …………………………

    ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের অনার্স ২য় বর্ষ পরীক্ষায় দুটি কলেজ কেন্দ্রে ভুল প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা নেয়ার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল (১৪ নভেম্বর) ইংরেজি ও অর্থনীতি বিভাগের বাংলাদেশের সমাজবিজ্ঞান (পত্র কোড ২২২০০৯) বিষয়ের পরীক্ষায় সরকারি কবি নজরুল কলেজ কেন্দ্র ও সরকারি তিতুমীর কলেজ কেন্দ্রে অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের প্রশ্নপত্রে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেয়া হয়েছে। সরকারি তিতুমীর কলেজ কেন্দ্রে সরকারি বাঙলা কলেজের শিক্ষার্থীরা এবং সরকারি কবি নজরুল কলেজ কেন্দ্রে বেগম বদরুন্নেসা মহিলা কলেজের শিক্ষার্থীরা পরীক্ষা দিয়েছেন।
    ……..
    খোঁজ নিয়ে জানা যায়, অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের ক বিভাগে ১২টি থেকে ১০টি, খ বিভাগে ৬টি থেকে ৩টি, গ বিভাগে ৫টি থেকে ২টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়। নিয়মিত শিক্ষার্থীদের ৬টি থেকে ৩টি প্রশ্নের উত্তর দিতে হয়। তবে গতকাল সরকারি তিতুমীর কলেজ কেন্দ্র ও কবি নজরুল সরকারি কলেজ কেন্দ্রে অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের প্রশ্নপত্রেই নিয়মিত শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেয়া হয়। এতে পরীক্ষার হলে বিপাকে পড়েন শিক্ষার্থীরা। তবে বাকি কলেজ কেন্দ্রগুলোতে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের প্রশ্নে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের এবং অনিয়মিতদের প্রশ্নে অনিয়মিতদের পরীক্ষা নেয়া হয়েছে।

    …………………………

    ক্ষোভ প্রকাশ করে সরকারি বাঙলা কলেজের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষার্থী আফাজ উদ্দিন বলেন, প্রশ্ন দেখেই আমরা দায়িত্বরত শিক্ষককে বলেছিলাম আমাদের প্রশ্ন কাঠামো এটা নয়। প্রশ্ন পরিবর্তন করে দিতে বললে তিনি বলেন আমাদের কাছে এই প্রশ্নই এসেছে। এই প্রশ্নেই তোমাদের পরীক্ষা দিতে হবে। এখন আমাদের ফলাফল খারাপ হলে এর দায়ভার কে নিবে?

    সরকারি বাঙলা কলেজের ইংরেজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক সাবরিনা ইসরাত বলেন, আমরা বিভাগ থেকে এরইমধ্যে দরখাস্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বরাবর ফরোয়ার্ড করে দিয়েছি। শিক্ষার্থীরা নিয়ে যাবেন। পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বিষয়টি সম্পর্কে অবগত আছেন। মুঠোফোনে এ বিষয়ে গতকালই জানানো হয়েছে।

    বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজের ইংরেজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক রহিমা আরজু বলেন, আমাদের শিক্ষার্থীদের দুর্ভাগ্য যে নিয়মিত শিক্ষার্থী হয়েও কবি নজরুল কলেজে অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের প্রশ্নপত্রে পরীক্ষা দিতে হয়েছে। এটার সুরাহা হওয়া উচিত। আমি গতকাল বিষয়টি জানার পরপরই যাতে শিক্ষার্থীদের ফলাফল কোন সমস্যা না হয় সেজন্য কলেজ অধ্যক্ষকে মাধ্যম করে পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বরাবর দরখাস্ত দিতে বলেছি শিক্ষার্থীদের।

    …………………………

    কবি নজরুল সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আমেনা বেগম বলেন, পরীক্ষার প্রথমে শিক্ষার্থীরা প্রশ্নপত্র নিয়ে অভিযোগ করে নাই। পরীক্ষা শেষ হওয়ার পর বলেছেন। আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে জানিয়েছি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবেন।

    ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. বাহলুল হক চৌধুরীর সঙ্গে সোমবার (১৫ নভেম্বর) দুপুর ১২টায় যোগাযোগ করা হলে তিনি মিটিংয়ে আছেন বলে জানান। পরবর্তীতে বিকেল ৫ টার দিকে আবারও যোগাযোগ করার করা হলে তিনি ফোন রিসিভ না করে কেটে দেন।