Thu. Feb 2nd, 2023

    …………………………

    জীবনের অনেক সময় আমরা যখন কোন বড় কিছু করতে যাই তখন ঝামেলা আমাদেরকে চারপাশ থেকে জড়িয়ে ধরে। তখন মনে হয় এই ঝামেলা গুলো যেন শুধু আমাদের জন্যই এসেছে। তবে কষ্ট কখনোই আজীবন স্থায়ী হয় না। যারা এটি বোঝে তারা সর্বদা সফল।
    …….
    এমনকি বিপরীত পরিস্থিতিতেও যারা তাদের লক্ষ্য গুলি প্রতি তাদের উৎসর্গ এবং ধৈর্য হারান না তারা তাদের নিজস্ব পরিচয় তৈরি করেন জীবনে। আজ আমরা আপনাকে তেমন একটি গল্প বলতে যাচ্ছি। একটি মেয়ে যিনি মাত্র 22 বছর বয়সে আইএএস হয়েছেন এবং কাজের প্রতি তার নিখুঁত প্রজ্ঞা দেখিয়েছেন।

    …………………………

    আসুন জেনে নেওয়া যাক এই তরুণী আই এ এস এর জীবনের গল্পটি কি। যিনি চ্যালেঞ্জ গুলিকে নামার সাহস দেখিয়ে ছিলেন এবং তার পরে আইএএস হয়েছিলেন। আইএএস রিতিকা জিন্দাল পাঞ্জাবের মোগা শহরে জন্মগ্রহণ করেছেন। পাঞ্জাবের সমস্ত বাচ্চার মতন রিতিকা ও শৈশব থেকেই লালা লাজপত রায় এবং ভগৎ সিং এর গল্প পড়ে বড় হয়েছেন।

    তিনি সব সময় পরিবারের থেকে সমাজের বেশি চিন্তা করতেন এবং গল্পগুলি পড়ে তিনি অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন এবং তিনি চেয়েছিলেন সমাজে এমন কিছু কাজ করতে যাতে তারা তাকে সর্বদা মনে রাখেন। রিতিকা মোগা থেকে দশম এবং দ্বাদশ শ্রেণী পাস করেছেন। রিতিকা পুরো উত্তর ভারত থেকে দ্বাদশ সি বি এস সি পরীক্ষা দিয়েছেন।

    এরপরে রিতিকা শ্রীরাম কলেজ অফ কমার্সে ভর্তি হন।এই কলেজ থেকে তিনি বিকম করেছেন এবং বিসিএম এর সময় তিনি কলেজে 95 শতাংশ নম্বর পেয়েছিলেন। রিতিকা বলেছেন যে কলেজ শেষ করার পরে তিনি ইউ পি এস সির জন্য প্রস্তুতি শুরু করেন। শৈশব থেকেই সমাজের সাথে তার অনুরাগ এর কারণে তিনি সর্বদা অফিসার হতে চেয়েছিলেন।

    জাতি তার জীবন ভগৎ সিং, লালা লাজপত রায়ের মতো দেশের জন্য কার্যকর হতে পারে। রিতিকা যখন প্রথমবারের মত জন্য ইউপিএসসি পরীক্ষা দিয়েছিলেন তখন তাকে কিছু নম্বর কম থাকার দরুন চূড়ান্ত তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছিল। তবে তিনি হাল ছাড়েননি দ্বিতীয়বার ইউ পি এস সি পরীক্ষায় অংশ নিয়ে তিনি দেশের মধ্যে 88 তম স্থান দখল করেছেন।

    …………………………

    তবে এই পরীক্ষার প্রস্তুতির সময় তার সামনে একটি বড় চ্যালেঞ্জ এসেছিল। যা তাকে মানসিকভাবে বিরক্ত করে তুলেছে। রিতিকা ইউনিয়ন পাবলিক সার্ভিস কমিশন অর্থাৎ ইউ পি এস সির প্রস্তুতি নেওয়ার সময় তার বাবা ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়। কিছু সময় বাদে ফুসফুসের ক্যান্সার নিরাময় হয়েছিল তবে সমস্যাটি এখানেই শেষ হয়নি।

    কিছু সময় পরে তিনি খোঁড়া ক্যান্সারের আক্রান্ত হয়। বাবার সাথে প্রচুর সংযুক্তির কারণে রিতিকার মন খুব খারাপ হতে শুরু করে। পড়াশোনার সময় তিনি তাঁর মানসিক ভারসাম্য হারিয়ে ফেলেন। তবে তিনিও চেয়েছিলেন তার বাবাকে কিছু দেখাতে হবে। সুতরাং এতো ঝামেলায় এবং মানসিক চাপ থাকা সত্ত্বেও তিনি কঠোর পরিশ্রম ছেড়ে দেননি।

    একদিন আইএএস অফিসার হয়ে গর্বের সাথে তার বাবার মাথা উচু করলেন এবং তাঁর হতাশা কে দূর করলেন। রিতিকা জানিয়েছেন কিভাবে তিনি সেই সময় নিজেকে শক্ত রেখেছেন। রিতিকা তার উদাহরণ দিয়ে বললেন যে পড়াশোনার সময় তার বাবার দুবার ক্যান্সার ধরা পড়ে।কিন্তু তিনি তার প্রভাব তার পড়াশোনার ওপরে পড়তে দেননি। তিনি বলেন যে আমাদের জীবনের পরিস্থিতির ওপর কখনো নিয়ন্ত্রণ থাকেনা।

    আমরা কেবল পরিস্থিতির সাথে লড়াই করে আমাদের সাফল্যের পথ পরিবর্তন করতে পারি। আমাদের জীবনের প্রতিটি মুহূর্তে খুশি থাকা উচিত। আমাদের মাথায় রাখতে হবে কোন কিছুই চিরস্থায়ী নয় তাই সেটা কাটিয়ে ওঠার মতো মনবল আমাদেরকেই জোগাড় করতে হবে। দ্বিতীয় পরামর্শ রিতিকা বলেছেন যে ইউপিএসসি পরীক্ষা পাশ করা কোন কঠিন কাজ নয়।

    …………………………

    সুতরাং আমাদের কখনোই হতাশ হওয়া উচিত নয়। বারবার প্রচেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে এবং নিজের উপর ভরসা রাখতে হবে। আমরা যদি খুশি মনে পড়াশোনা করি তাহলে সেটি কার্যকর হবে এবং এর পাশাপাশি আমরা দীর্ঘ সময় পর্যন্ত তা স্মরণ করে রাখতে পারব। আমাদের কখনোই আমাদের শক্তি খণ্ডিত হওয়া উচিত নয়।

    আমরা যদি ছিন্ন-বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ি তবে তাতে অসুবিধা হবে। তৃতীয় পরামর্শে আইসিএস রিতিকা জিন্দাল বলেছেন যে আমাদের কখনোই ব্যর্থতার ভয় পাওয়া উচিত নয়। ব্যর্থতা বা অসফলতার মই আমাদের সাফল্যের দরবারে নিয়ে যায়। আমরা যদি কখনো ব্যর্থ হয় না হয় তবে আমরা শিখব কিভাবে?

    তিনি বলেন যে ব্যর্থতায় পরে আমাদের কখনো হাল ছেড়ে দেওয়া উচিত নয়। নিজের ত্রুটি গুলি লক্ষ্য করে এটিকে শুধরে নেওয়া উচিত। উদাহরণস্বরূপ তিনি বলেছিলেন প্রথমবার পরীক্ষা দেওয়ার সময় সমস্ত পদক্ষেপ অতিক্রম করলেও চূড়ান্ত তালিকায় স্থান পাননি। তিনি যদি প্রথম বার হেরে যাওয়ার ফলে পিছিয়ে পড়তেন তবে আজ এই সাফল্য অর্জন করতে পারতেন না।

    …………………………