Fri. Feb 3rd, 2023

    হুছনাইনের বন্ধুরা কথার ছলে দুষ্টুমি করে তাকে ম্যাজিস্ট্রেট বলে ডাকত। বন্ধুদের এমন মধুর দুষ্টুমির কারণে ছোটবেলা থেকেই নিজেও স্বপ্ন দেখতে থাকেন বড় হয়ে একদিন ম্যাজিস্ট্রেট হবেন।

     

    সেই স্বপ্ন নিয়ে ধীরে ধীরে এগোতে থাকেন মেধাবী হুছনাইন। কঠোর অধ্য’বসায় আর পরিশ্রমে একদিন সেই স্বপ্ন পূরণ হয় তার। ৩৮তম বিসিএসের ফলাফলে প্রশাসন ক্যাডারের মেধা তালিকায় ১২৩তম হন তিনি।

    হুছনাইন জানান, “হৃদয়ের লালিত স্বপ্ন নিয়ে পড়ালেখায় আরও মনোনিবেশ করেন তিনি। ২০০৯ সালে বিজ্ঞান বিভাগে এসএসসি ও পরে চাচা যুগ্ম-জেলা জজ শাজাহান আলী শিপনের পরামর্শে মানবিক বিভাগে ২০১১ সালে এইচএসসি-তে জিপিএ-৫ পেয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে ভর্তি হন।

    সেখান থেকে অনার্স এবং মাস্টার্স সম্পন্ন করে ৩৭তম বিসিএস পরীক্ষা দেন। সেবার সামান্যের জন্য হাতছাড়া হয়ে যায় ম্যাজিস্ট্রেট হওয়ার স্বপ্ন।

     

    সুযোগ পান শিক্ষা ক্যাডারে। কুষ্টিয়ার আমলা সরকারি কলেজে যোগ দেন প্রভাষক হিসেবে। তবুও ম্যাজিস্ট্রেট হওয়ার স্বপ্ন থেকে পিছপা হননি তিনি। ফের আবেদন করেন ৩৮তম বিসিএসে।

    হৃদয়ে লালিত স্বপ্ন অবশেষে তার জীবনে ধরা দেয় ২৯ জুন। পিএসসি ঘোষিত ৩৮তম বিসিএসের ফলাফলে মেধা তালিকায় ১২৩তম হিসেবে তাকে প্রশাসন ক্যাডারে সহকারী কমিশনার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে নিয়োগ দিতে সুপারিশ করা হয়।

    হুছনাইন মুহাম্মদ  ঝিনাইদহ এর হরিণাকুণ্ডু উপজেলার শিতলী গ্রামের কৃষক মনিরুল ইসলাম ও গৃহিণী জাহানারা খাতুনের সন্তান।

     

    হুছনাইন মুহাম্মদ জানান, “মা-বাবার কঠোর পরিশ্রম আর চাচা যুগ্ম-জেলা ও দায়রা জজ শাজাহান আলী শিপনের পরামর্শে বিজ্ঞান বিভাগ ছেলে মানবিক নিয়ে ম্যাজিস্ট্রেট হওয়ার স্বপ্নে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছিলাম।

    তার এ সাফল্যে বাবা-মা, চাচা, আত্মীয়স্বজন, বন্ধুবান্ধব সবাই অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন। তিনি সততার সঙ্গে জনগণের সেবা করতে চান।

     

    হুছনাইনের চাচা যুগ্ম-জেলা ও দায়রা জজ মো. শাজাহান আলী শিপন বলেন, ছোটবেলা থেকেই হুছনাইনের স্বপ্ন ছিল ম্যাজিস্ট্রেট হওয়ার। আজ ওর স্বপ্ন পূরণ হয়েছে।

    তথ্যসূত্রঃ দৈনিক সমকাল