Sat. May 21st, 2022





    ★লিখেছেনঃ সাদ্দাম হোসেন খান,

    সাব ইন্সপেক্টর, 37 তম ব্যাচ(নিরস্ত্র)।

    SI Recruitment procedure:

    Sub-inspector [S.I.) এর  নিয়োগ প্রক্রিয়া  সাধারণত ৪টি ধাপে হয়ে থাকে। প্রথমে শারীরিক পরীক্ষা পরীক্ষা হয়, শারীরিক পরীক্ষায় টিকলে ২২৫ নম্বরের লিখীত পরীক্ষা হয়। তারপর ১০০ নম্বরের মৌখিক পরীক্ষা হয়। মৌখিক পরীক্ষায় টিকলে  সর্বশেষ স্বাস্থ পরীক্ষা ও পুলিশ ভেরিফিকেশন হয়ে থাকে।

    আজকের  পোস্টে SI নিয়গের প্রথম ধাপ বা মাঠ পরীক্ষার বিস্তারিত সম্পর্কে আপনাদের উদ্দেশ্য লিখেছেন সাদ্দাম হোসেন খান, Sub-inspector, 37th Batch(নিরস্ত্র)।

     






    ১. মাঠে নেবার জন্য সব কাগজ পরীক্ষার আগের রাতেই গুছিয়ে ফাইলে করে একটি ব্যাগে রাখবেন। পরীক্ষা শেষ হতে হতে প্রায় বিকাল গড়িয়ে সন্ধ্যা হবে তাই আগের রাতে পর্যাপ্ত ঘুমাবেন ।

    ২.ছেলেরা যারা মাঠ পরীক্ষা দিবেন তারা ফুল প্যান্টের নিচে হাফ-প্যান্ট পরবেন এবং শার্ট বা টিশার্টের নিচে স্যান্ডো গেঞ্জি পরবেন। এগুলো ফিটনেস পরীক্ষায় সময় দরকার হবে, কারণ আপনি ফুল-প্যান্ট পরে দৌড়াতে, লাফাতে পারবেন না।

    ৩. সকাল সকাল নাস্তা খেয়ে বের হবেন এবং মাঠে নির্ধারিত সময়ের আগেই উপস্থিত হবেন।

    ৪. মাঠে যাবার পর সবার প্রথমে আপনাদের উচ্চতা মাপা হবে। যাদের উচ্চতা ৫’ ৪” এর বেশি আছে শুধু তারাই এইখানে সিলেক্টেড হবে বাকিরা বাদ পড়ে যাবে।

     






    ৫. সিলেক্টেডদের ১০-১২জন করে ভাগ করে দৌড় দেওয়াবে এবং যারা দৌড়ে আগে আসবে তাদের মধ্য থেকে ৮বা৯ জনকে সিলেক্ট করা হবে। এটাই হচ্ছে মাঠ পরীক্ষার মূল। এইখানে টিকলে আপনি রিটেন পরীক্ষা দেওয়ার ফর্ম এর আশা করতে পারেন।

    (এখানে একটা ট্রিক ফলো করবেন, আপনি সব সময় আপনার হাইট ও শারীরিক দিক থেকে যাদেরকে দুর্বল মনে করবেন তাদের দলে দৌড় দেবার চেষ্টা করবেন। এতে করে আপনার জন্য টিকা সহজ হবে)

    ৬. মাঠে লং জাম্প ও দড়ি বেয়ে ওঠাটা শুধুমাত্র ফর্মালিটির মতো। এইখান থেকে সাধারণত খুব একটা বাদ যায় না ।

    ৭.সিলেক্টেড প্রার্থীদের উচ্চতা, ওজন ও কাগজপত্র চেক করার পর আপনাকে মূল ফর্ম দেওয়া হবে। মূল ফর্মটি  নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে (কয়েকদিন সময় পাওয়া যায়) পূরন করে আপনাকে জমা দিতে হবে,  সকল কাগজের সত্যায়িত কপি সহ।

     






    ৮. মাঠ থেকে আগে বের হবার সুজোগ পেলে অথবা  আপনি  আপনার  পরিচিত কাউকে দিয়ে সোনালী ব্যাংক হতে ৩০০ টাকার একুটা  চালান কেটে রাখবেন। এতে আপনার সময় বেচে যাবে।

    কিছু সাধারন ব্যাপার জেনে নেওয়া যাকঃ

    ১.চোখে চশমা ব্যবহারের জন্য কাউকে বাদ দেওয়া হয় না, তবে মাঠে চশমা ব্যবহার না করাই ভালো।

    ২. দাঁতের কোন সমস্যা, কোন কাটার দাগ অথবা ছোটখাটো চর্মরোগে কোন সমস্যা হয়না।

    ৩. দুই পা ভি আকৃতি করে দাড়ালে হাটু লেগে যাওয়ার সমস্যা থেকে থাকে তাহলে বাসায় প্রতিদিন কোলবালিস ব্যবহার করুন। পজিটিভ ফলাফল পাবেন। (তবে সব রেন্জে এটা চেক করে না)

     






    ৪. আপনার উচ্চতা অনুযায়ী ওজন বেশি হয়ে থাকলে, কিছুদিন রাতে এবং সকালে ভাত খাওয়া বাদ দিন সাথে দৌড়াদৌড়ি করুন। ওজন কম হলে, ৩ বেলা পেট ভরে খাবার খান এবং মাঠে ওজন মাপার আগে ২ লিটার পানি খাবেন।

    ৫. আপনার স্থায়ী ঠিকানা যেখানে, সেই অনুযায়ী আপনাকে মাঠে দাড়াতে হবে। বর্তমান ঠিকানা হিসেবে দ্বাড়াতে যাবেন না তাগলে নিজের পায়ে নিজে কুড়াল মারবেন।

    মোটামুটি মাঠের পরীক্ষা সাধারণত  এইভাবেই হয়ে থাকে। তবে জেলাভিত্তিক কিছু পরিবর্তন দেখা দিতে পারে। মাঠের বিষয়গুলো মাঠের স্যারদের উপর নির্ভর করে,

    তাই যতটুকু সম্ভব সবকিছু পার্ফেক্টলি করবেন। তারা আপনাকে ফর্ম না দিলে আপনার কিছু করার নাই। তাই সবাই সার্কুলারে উল্লেখিত সকল প্রয়োজনীয় কাগজপত্র নিয়ে যাবেন।

    পারলে, সবগুলো কাগজ ২সেট করে ফটোকপি করে সত্যায়িত করে নিয়ে যাবেন। মাঠে এইসব না লাগলেও, আপনাকে ফর্ম দেওয়ার পর মাত্র কয়েকদিন সময় পাবেন।

     






    এরমধ্যে সবকিছু ফটোকপি করে সত্যায়িত করা অনেক ঝামেলার কাজ। তাই সবকিছু আগে থেকেই গুছিয়ে রাখবেন। সবার জন্য শুভ কামনা।